পশু-পাখির প্রতিও সদয় হােন

0
94

লেখক: শায়খ মুহাম্মদ বিন আব্দুর রহমান আল-আরিফী | অনুবাদক: কাজী মুহাম্মদ হানিফ

অমায়িক ব্যবহার কারাে অভ্যাসে পরিণত হলে তা সাধারণত দূর হয় না। তা তার প্রকৃতির অংশ হয়ে যায়। সে সব সময় সবার সঙ্গে নম্র, ভদ্র, বিনয়ী ও স্নেহশীল আচরণ করে। জীব-জন্তু এমনকি জড় পদার্থের সঙ্গেও তার আচরণ হয় কোমল। 

আল্লাহর রাসূল একবার সাহাবায়ে কেরামসহ সফরে ছিলেন। পথিমধ্যে তারা এক জায়গায় যাত্রাবিরতি করলেন। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ও প্রাকৃতিক প্রয়ােজনে বের হলেন। সাহাবায়ে কেরামও যার যার প্রয়ােজনীয় কাজ সেরে নিচ্ছিলেন। জনৈক সাহাবি দুটি ছানাসহ একটি রেডস্টার্ট পাখি দেখলেন। তিনি সখেরবশে ছানাদুটিকে ধরে নিয়ে এলেন।

এদিকে মা পাখিটা তার কাছে চলে এলাে। পাখিটি তাদের চারপাশে ঘুরঘুর করে ডানা ঝাপটাচ্ছিল। ইতােমধ্যে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এলাে ফিরে এলেন। তিনি পাখিটার এ অবস্থা দেখে সে সাহাবীদেরকে বললেন, ‘ছানা দু’টি আটকে রেখে মা পাখিটাকে কে কষ্ট দিচ্ছে? এক্ষুণি ছানা দু’টিকে মায়ের কাছে ফিরিয়ে দাও। আরেকবার আল্লাহর রাসূল দেখলেন, পিপীলিকার একটি ঢিবি পুড়িয়ে। দেয়া হয়েছে। তিনি বললেন, ‘কে এটি পুড়িয়েছে? একজন সাহাবী বললেন, ‘আমি, হে আল্লাহর রাসূল!’ রাসূল খুব রাগ করলেন। তিনি বললেন, ‘আগুন দিয়ে শাস্তি দেয়ার অধিকার কেবল তার, যিনি আগুনের স্রষ্টা।

চতুষ্পদ জন্তুর প্রতিও তিনি ছিলেন উদার ও সদয় । তিনি ওযু করার সময় তার কাছে কোনাে বিড়াল এলে তিনি পানির পাত্রটি বিড়ালের সামনে ঝুঁকিয়ে দিতেন। বিড়ালটি পানি পান করলে পরে অবশিষ্ট পানি দিয়ে ওযু শেষ করতেন। এক দিনের ঘটনা। রাসূল কোথাও যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যে জনৈক ব্যক্তিকে দেখলেন, মাটিতে একটি বকরি শুইয়ে রেখে বকরিটার ঘাড়ে পা দিয়ে চেপে ধরে রেখেছে, অন্যদিকে জবাই করার জন্য ছুরি ধার দিচ্ছে। এদিকে বকরীটি সকাতর দৃষ্টিতে তার দিকে তাকিয়ে রয়েছে। এ অবস্থা দেখে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম খুব রাগ করে বললেন, “তুমি কি বকরিটিকে দু’বার মারতে চাও? শােয়ানাের আগে ছুরিটা ধার দিলে না কেন? একদিন রাসূল দু’জন ব্যক্তির পাশ দিয়ে যাচ্ছিলেন। তিনি দেখলেন, তারা। উভয়ে নিজেদের উটের ওপর বসে বসে কথা বলেছে। এ অবস্থা দেখে উট দু’টির প্রতি রাসূলের খুব দয়া হলাে। তাই তিনি কোনাে পশুকে চেয়ারস্বরূপ ব্যবহার করতে নিষেধ করলেন। অর্থাৎ প্রয়ােজনের সময় উটের ওপর অবশ্যই আরােহণ করবে। তবে প্রয়ােজন শেষ হলে নেমে যাবে। পশুটিকে আরাম করতে দেবে।

আল্লাহর রাসূল পশুর কপালে বা চেহারায় দাগ দিতেও নিষেধ করেছেন। রাসূলের ‘আযবা’ নামক একটি উষ্ট্রী ছিল। এটি মুসলমানদের উটের পালের সাথে মদিনার উপকণ্ঠে বিচরণ করছিল। একবার মুশরিকদের একটি দল এ উটের পালের ওপর হামলা করে সেগুলাে নিয়ে গেল । উটের পালের সাথে একজন মুসলিম নারীকেও তারা বন্দী করে নিয়ে গেল। যাওয়ার পথে বিশ্রামের জন্য একস্থানে থেমে উটগুলাে মাঠে ছেড়ে দিয়ে তারা ঘুমিয়ে পড়ল। এদিকে রাত যখন গভীর হলাে তখন সে মুসলিম নারী পলায়নের প্রস্তুতি নিলেন। তিনি আরােহণের জন্য একটি উটের দিকে অগ্রসর হলেন । কিন্তু কাছে আসা মাত্রই উটটি জোরে চেঁচিয়ে উঠল। ভাগ্য ভালাে মুশরিকদের সবাই ছিল গভীর ঘুমে মগ্ন। উটের চেঁচামেচিতে তাদের কেউ জাগল না। এরপর মহিলা খুব সাবধানে অন্য একটি উটের কাছে গেলেন। কিন্তু সেটিও চিৎকার করে উঠল। এভাবে একে একে তিনি প্রতিটি উটের কাছে গেলেন। কিন্তু সবগুলােই ডাকাডাকি করলাে। শেষ পর্যন্ত তিনি আযবা নামক উটনীটির কাছে এসে দেখলেন, সেটি খুব নম্র ও শান্ত । এটি কোনাে চিৎকার করছে না। মুসলিম মহিলা তাতে আরােহন করে মদিনার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হলেন। উজ্জ্বীটিও খুব দ্রুতগতিতে ছুটে চলল। বিপজ্জনক এলাকা পার হয়ে মদিনার কাছাকাছি আসতেই মহিলা আবেগাপ্লুত হয়ে পড়ল।

জীবনকে উপভােগ করুন আনন্দের আতিশয্যে সে বলে ফেলল, হে আল্লাহ! আমি মানত করছি, আমি যদি এ উটের পিঠে চড়ে পরিপূর্ণ মুক্ত হতে পারি তাহলে তােমার জন্য একে জবাই করব!’  মহিলা মদিনায় পৌছল। লােকজন রাসূলের উজ্জ্বীটিকে দেখে চিনে ফেলল । মহিলা তার বাড়িতে পৌঁছল। এদিকে লােকজন উস্ত্রী নিয়ে আল্লাহর রাসূলের কাছে উপস্থিত হলাে। অপরদিকে মহিলাও জবাই করার জন্য উষ্ট্রীটিকে খুঁজতে লাগল । খবর পেয়ে তিনিও রাসূলের কাছে গিয়ে হাজির হলেন। রাসূলকে জানালেন, তিনি এটাকে কোরবানী করার মানত করেছেন। এ কথা শুনে আল্লাহর রাসূল বললেন, এ কেমন প্রতিদান!

এর মাধ্যমে আল্লাহ তােমাকে মুক্তি দিলেন, আর বিনিময়ে তুমি একেই জবাই করতে চাচ্ছ? কী নিকৃষ্ট প্রতিদান তুমি দিতে চেয়েছ!’ এরপর রাসূল বললেন, ‘আল্লাহর অবাধ্যতা হয় এমন মানত পূরণ করা যায় না। অনুরূপভাবে তুমি যার মালিক নও তার ব্যাপারে কোনাে মান্নত করলেও তা পূরণ করতে হয় না। আল্লাহ তায়ালা আপনার মধ্যে নম্রতা, ভদ্রতা , কোমলতা, উদারতা ও মানবিকতা ইত্যাদি যে সহজাত গুণাবলি দিয়েছেন এগুলােকে সবসময় চর্চা করুন। এ গুণাবলিকে সর্বক্ষেত্রে ও সবার সঙ্গে প্রয়ােগ করে আপনি হয়ে উঠুন অনন্য। শুধু মানুষ নয় প্রাণীকুল ও জীবজন্তুর সাথেও এগুলাের অনুশীলন করুন। গাছপালা ও তরু-লতাও যেন আপনার সদাচরণ ও স্নেহের পরশ থেকে বঞ্চিত না হয়। রাসূল আল জুমার দিন মসজিদে স্থাপিত একটি খেজুর গাছে ভর দিয়ে দাঁড়িয়ে খুতবা দিতেন। একদিন জনৈক আনসারী মহিলা বললেন, ‘আল্লাহর রাসূল!

আমার এক কাঠমিস্ত্রি ক্রীতদাস আছে। অনুমতি দিলে তাকে দিয়ে আপনার জন্য একটি মিম্বর বানিয়ে দেব। রাসূল বললেন, “ঠিক আছে, বানিয়ে দাও। মহিলা সাহাবী রাসূলের জন্য একটি কাঠের মিম্বর তৈরি করালেন। মিম্বরটি যথারীতি মসজিদে স্থাপন করা হলাে। জুমার দিন। আল্লাহর রাসূল সে মিম্বরে আরােহণ করলেন। তার মিম্বরে বসতে না বসতেই খেজুর গাছের কাণ্ডটি ষাঁড়ের ন্যায় সজোরে চিৎকার করে উঠল। মনে হচ্ছিল এখনই তা ফেটে পড়বে। তার কান্নার আওয়াজে পুরাে মসজিদ যেন কেঁপে উঠল। অবশেষে তিনি মিম্বর থেকে নেমে গাছটিকে বুকে জড়িয়ে ধরলেন । তখন ক্রন্দনরত খেজুর কাণ্ডটি শিশুর ন্যায় ফুঁপিয়ে ফুঁপিয়ে এক পর্যায়ে শান্ত হলাে।

রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, যার হাতে আমার প্রাণ সে সত্তার কসম! আমি যদি গাছটিকে বুকে জড়িয়ে না ধরতাম তাহলে কিয়ামত পর্যন্ত সেটি এভাবে কাঁদতে থাকত।

ইঙ্গিত… আল্লাহ মানুষকে আশরাফুল মাখলুকাত বানিয়েছেন। কিন্তু অন্য প্রাণিকে পীড়ন করার অধিকার তাকে দেন নি।

উৎসঃ Enjoy Your Life (Bangla Version) , অধ্যায়ঃ ১৪, পৃষ্ঠা: ৭৫ – ৭৮
Print Friendly, PDF & Email


'আপনিও হোন ইসলামের প্রচারক'
প্রবন্ধের লেখা অপরিবর্তন রেখে এবং উৎস উল্লেখ্য করে
আপনি Facebook, Twitter, ব্লগ, আপনার বন্ধুদের Email Address সহ অন্য Social Networking ওয়েবসাইটে শেয়ার করতে পারেন, মানবতার মুক্তির লক্ষ্যে ইসলামের আলো ছড়িয়ে দিন। "কেউ হেদায়েতের দিকে আহবান করলে যতজন তার অনুসরণ করবে প্রত্যেকের সমান সওয়াবের অধিকারী সে হবে, তবে যারা অনুসরণ করেছে তাদের সওয়াবে কোন কমতি হবেনা" [সহীহ্ মুসলিম: ২৬৭৪]

আপনার মন্তব্য লিখুন