মানসিক অবস্থা বিবেচনায় রাখুন

0
284

লেখক: শায়খ মুহাম্মদ বিন আব্দুর রহমান আল-আরিফী | অনুবাদক: কাজী মুহাম্মদ হানিফ

মানুষের মানসিক অবস্থা একেক সময় একেক রকম থাকে। সুখ, দুখ, সুস্থতা, অসুস্থতা, সচ্ছলতা, অসচ্ছলতা, স্থিরতা, অস্থিরতা ইত্যাদি বিভিন্ন অবস্থার কারণেও ব্যক্তির মানসিক অবস্থা পরিবর্তিত হয়ে থাকে। আর মানসিক অবস্থার পরিবর্তনের ফলে অন্যদের সাথে তার আণের ধরনেও পরিবর্তন আসে।

এ জন্য কেউ যখন ফুরফুরে মেজাজে থাকে তখন তার কাছে হাস্যরসিকতা ভাল লাগে। কিন্তু উদ্বেগ ও অস্থিরতার সময় হাস্যরসিকতা ভাল লাগে না। মৃতের শােকসন্তপ্ত পরিবারের সাথে সহমর্মিতা প্রকাশ করতে গিয়ে তাদের সঙ্গে রসিকতা করা অবশ্যই অনুপযােগী। কিন্তু বন্ধুদের সাথে প্রমােদভ্রমণে গিয়ে আনন্দ-ফুর্তি ও রসিকতা করা যে উপযােগী তা বলাই বাহুল্য। কেননা, এটা সর্বজনস্বীকৃত বিষয়। এখানে তা আলােচনা করা আমার উদ্দেশ্য নয়। আমি যে বিষয়টি নিয়ে আলােচনা করতে চাই তা হলাে, কারাে সঙ্গে কথা বলা ও আচার-আচরণের আগে অবশ্যই তার মানসিক অবস্থা বিবেচনা করা উচিত। মনে করুন, কোনাে মহিলাকে তার স্বামী তালাক দিয়েছে। মহিলার মাবাবা বেঁচে নেই।

ভাই ভাবীর বাসা ছাড়া তার থাকার আর কোনাে জায়গা নেই। সেখানে যাওয়ার জন্য সে কাপড়-চোপড় গুছিয়ে নিচ্ছে। এমন সময় প্রতিবেশী জনৈক মহিলা তার সাথে দেখা করতে এলাে। সে তাকে বসতে বলে চা-কফি নিয়ে এলাে। চা পান করতে করতে প্রতিবেশী মহিলাটি ভাবতে লাগল এ মুহূর্তে তার সাথে কী কথা বলা যায়? এরই মধ্যে তালাকপ্রাপ্তা মহিলাটি বললাে, “আপা! গতকাল আপনাদেরকে বাসা থেকে বের হতে দেখলাম, কোথায় গিয়েছিলেন? প্রতিবেশী মহিলাটি বললাে, ও আচ্ছা! ওর বাবা (মহিলার স্বামী) গতকাল আমাকে বাইরে কোনাে রেস্টুরেন্টে গিয়ে ডিনার করার জন্য পীড়াপীড়ি করছিল। অবশেষে বাধ্য হয়ে বের হতে হলাে। ডিনার শেষে আমার বােনের বিয়েতে পরার জন্য মার্কেট থেকে একটা ড্রেস কিনল।

এরপর বয়ের অনুষ্ঠানে পরার জন্য একটি জুয়েলারি দোকান থেকে আমার জন্য চুড়ি কিনল। বাড়িতে ফিরে দেখলাম বাচ্চাদের মন খারাপ। তখন ও তাদেরকে আগামী সপ্তাহে বেড়াতে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে সান্ত্বনা দিল । অসহায় তালাকপ্রাপ্ত মহিলাটি তার প্রতিবেশীর এসব কথা শুনছিল আর একটু পরে ভাইয়ের বাড়িতে তার কী দুরবস্থা হবে তা ভাবছিল। এখানে প্রশ্ন হলাে, একটু আগে যে মহিলার স্বপ্নের সংসার ভেঙ্গে গেছে তার সঙ্গে এ ধরনের আলাপচারিতা কতটা যুক্তিসঙ্গত? আপনার কী মনে হয় এ ঘটনার পর ঐ প্রতিবেশী মহিলার প্রতি তার ভালবাসা আরাে বাড়বে? তার সঙ্গে আলাপ করতে সে আরাে বেশি আগ্রহী হয়ে উঠবে? তাকে দেখলে সে খুশী হবে?

নিশ্চয় আমরা সবাই একবাক্যে বলব, না। বরং প্রতিবেশী মহিলার কথায় তার মনের গহীনে হিংসা ও ক্ষোভের আগুন জ্বলে উঠবে। তাহলে এর সমাধান কী? সে কি মিথ্যা কথা বলবে? কখনাে না। সে মিথ্যার আশ্রয় নেবে না; বরং আলােচনাকে সে দীর্ঘায়িত না করে সংক্ষেপে শেষ করবে। সে এমন বলতে পারে, বাইরে জরুরি একটা কাজ ছিল । তাই একটু বের হয়েছিলাম।

তারপর সে প্রসঙ্গ পাল্টে অন্য প্রসঙ্গে চলে যাবে এবং তালাকপ্রাপ্ত অসহায় মহিলাটিকে সান্ত্বনামূলক কথা বলে ধৈর্য ধরার পরামর্শ দেবে। আরেকটি উদাহরণ দেখুন । দুই বন্ধু একসঙ্গে নিম্নমাধ্যমিক স্তরের ফাইনাল পরীক্ষা দিয়েছে। একজন খুব ভাল ফলাফল করেছে, কিন্তু অপরজন কয়েক বিষয়ে ফেল করেছে কিংবা এত কম নম্বর পেয়ে পাশ করেছে যে, কোনাে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার সুযােগ লাভ করা তার জন্য সম্ভব নয়। যে ভাল রেজাল্ট করেছে সে নামকরা এক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হলাে। আর অপর বন্ধু বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযােগ না পেয়ে সাধারণ কোনাে চাকরিতে যােগ দিল। যে বন্ধু বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার সুযােগ পেল সে যখন তার বন্ধুর সঙ্গে দেখা করবে, তখন সে কি তার সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের দিনকাল, পড়াশােনা ও সেখানকার নানা সুযোেগ সুবিধার কথা নিয়ে আলােচনা করবে?

এ প্রশ্নের জবাবেও নিশ্চয়ই সবাই বলবে, না। তাহলে করণীয় কী? করণীয় হলাে, সে এমন কোনাে বিষয় নিয়ে আলােচনা করবে, যাতে বন্ধুর মানসিক চাপ কিছুটা হলেও দূর হতে পারে। যেমন সে বলতে পারে, এ বছর বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিতে অনেক ধকল পােহাতে হয়েছে। ভাল ফলাফল করা অনেক ছাত্র পরীক্ষা দেয়ার পরও খুব অল্প সংখ্যক ছাত্র চান্স পেয়েছে। মাধ্যমিক স্তরে ভাল নম্বর নিয়ে পাশকরা বহুছাত্র হতাশ হয়ে ফিরে গেছে। এ জাতীয় আলােচনায় বন্ধুর মানসিক চাপ কিছুটা হলেও দূর হবে এবং সে এ বন্ধুর সঙ্গে আলাপ করে সান্ত্বনা পাবে। বন্ধুর প্রতি তার ভালবাসা আরাে বেড়ে যাবে। সে তাকে তার সবচেয়ে অন্তরঙ্গ বন্ধু হিসেবে গণ্য করবে। আরেকটি উদাহরণ দেখুন। দুই বন্ধুর সাক্ষাত হলাে।

একজনের পিতা বেশ উদার। ছেলেকে হাত খরচের জন্য যথেষ্ট টাকা দেন। অপরজনের বাবা খুব কৃপণ। সামর্থ থাকা সত্ত্বেও ছেলের প্রয়ােজন অনুপাতে টাকা দেন। টাকা চাইলেই শুধু হিসাব চান। এ পরিস্থিতিতে সচ্ছল বন্ধুর জন্য তার বাবার উদারতা নিয়ে গল্প করার অর্থ হলাে তার বন্ধুর মানসিক কষ্ট বাড়িয়ে দেয়া। এধরনের আলােচনার মাধ্যমে তার মন খারাপ হয়ে যাবে এবং নিজের বাবার আচরণ মনে করে সে কষ্ট পাবে। এর ফলে এ বন্ধুর সঙ্গে তার চলাফেরা করা কঠিন হয়ে যাবে। এজন্যই আমাদের নবী প্রেঃ অপরের আবেগ-অনুভূতি ও মানসিক অবস্থার প্রতি বিশেষ লক্ষ্য রাখতে আদেশ করেছেন। তিনি বলেছেন: তােমরা কুষ্ঠরােগীর দিকে দীর্ঘক্ষণ তাকিয়ে থেক না।(সুনানে ইবনে মাযাহ: ৩৫৩৩, মুসনাদে আহমদ: ১৯৭১)

কুষ্ঠরােগ এমন এক রােগ যা চামড়ার উপরিভাগকে সম্পূর্ণ বিকৃত করে দেয়। দেখতে বিশ্রী লাগে। তাই কুষ্ঠরােগী কারাে পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় সে যদি তার দিকে তাকিয়ে থাকে তাহলে সে লজ্জা পায় এবং তার মানসিক কষ্ট হয়। এজন্য রাসূল (সাঃ) তার দিকে তাকিয়ে থাকতে নিষেধ করেছেন। এখানে আরাে একটি ঘটনা আলােচনা করছি। এ ঘটনার মাধ্যমে আমরা দেখতে পাব রাসূল (সাঃ) মানুষের মানসিক অবস্থা কত গুরুত্বসহকারে বিবেচনায় রাখতেন। রাসূল (সাঃ) মুসলিম বাহিনী নিয়ে মক্কাবিজয়ের উদ্দেশ্যে মক্কার উপকণ্ঠে এসে থামলেন। আবু বকর (রাঃ)-এর পিতা আবু কোহাফা ছিলেন অতিশয় বৃদ্ধ ও দৃষ্টিশক্তিহীন। তিনি তার এক নাতনিকে বললেন, ‘আমাকে একটু আবু কুবাইস পাহাড়ের কাছে নিয়ে যাও।

লােকেরা যা বলাবলি করছে তা কতটুকু সত্য, তা একটু দেখে আসি। মােহাম্মদ কি এসে পড়েছে? নাতনি দাদাকে নিয়ে পাহাড়ের ওপর দাঁড়াল। দাদা বললাে, “বেটি! কী দেখতে পাচ্ছাে?’ ‘বিশাল এক দলকে এগিয়ে আসতে দেখছি। ‘এটাই তাহলে মােহাম্মদের বাহিনী। মেয়েটি বললাে, ‘একজনকে দলটির আগে ও পেছনে আসা যাওয়া করতে দেখছি। দাদা বললাে, ‘বেটি! সে এ বাহিনীর সেনাপতি হবে। সৈন্যদেরকে সে দিকনির্দেশনা দিচ্ছে। মেয়েটি হঠাৎ শঙ্কিত স্বরে বললাে, “দাদা! দলটি তাে চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ছে। দাদা বললাে, তারা এখন মক্কার দিকে আসছে। অতি সত্বর তারা পৌছে যাবে। আমাকে তাড়াতাড়ি বাড়ি নিয়ে চল। কারণ তারা বলেছে, যে নিজের ঘরে থাকবে, সে নিরাপদ। মেয়েটি দাদাকে নিয়ে পাহাড় থেকে নেমে বাড়ি পৌছার আগেই মুসলিম বাহিনীর ঘােড়সওয়ারদের সামনে পড়ে গেল। আবু বকর স্থি বাবাকে দেখে এগিয়ে এলেন। তিনি আবেগাপ্লুত কণ্ঠে তাকে অভিনন্দন জানালেন। তারপর তার হাত ধরে রাসূল সাঃ-এর কাছে মসজিদে নিয়ে গেলেন।

নবী করিম (সাঃ) আবূ কোহাফার দিকে তাকালেন। অতি বার্ধক্যে তার শরীর দুর্বল হয়ে পড়েছে। অস্থি মজ্জা শুকিয়ে গেছে। পরপারের সময় ঘনিয়ে এসেছে। আবু বকর অপলক দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছেন পিতার দিকে। কতদিন পিতাকে তিনি দেখেন না। দ্বীনের জন্য তিনি সব ছেড়ে। চলে গিয়েছিলেন মদিনায়। রাসূল (সাঃ) আবু বকর (রাঃ)-কে খুশি করার জন্য এবং তার গুরুত্ব বােঝানাের জন্য বললেন, ‘আবু বকর! মুরুব্বিকে বাড়িতে রেখে আসতে! আমি নিজে গিয়ে তাঁর সঙ্গে সাক্ষাৎ করতাম।

আবু বকর রাদিয়াল্লহু জানতেন, তারা এখন যুদ্ধের ময়দানে। রাসূল (সাঃ) তাদের সেনাপতি। তিনি অনেক ব্যস্ত। এ মুহূর্তে বাড়িতে গিয়ে তার পিতাকে ইসলামের দাওয়াত দেয়ার মতাে সময় বের করা রাসূলের জন্য অনেক কঠিন। তাই তিনি কৃতজ্ঞতার সাথে বললেন, আল্লাহর রাসূল! আপনি তার কাছে যাওয়ার চেয়ে তিনি আপনার কাছে আসবেন, এটাই তাে যুক্তিযুক্ত। রাসূল (সাঃ) আন্তরিকতা ও শ্রদ্ধার সঙ্গে আবৃ কোহাফাকে সামনে বসালেন। তার ১ বক্ষে হাত বুলিয়ে দিয়ে বললেন, আপনি ইসলাম কবুল করে নিন। আবু কুহাফার চেহারায় আলাের ছটা খেলে গেল। তিনি স্বতঃস্ফূর্তভাবে কালিমায়ে শাহাদাত পাঠ করলেন। পিতার ইসলাম গ্রহণে আবু বকর দিয়ৎ এতে খুশি হলেন যে, সারা পৃথিবী তার করায়ত্ব হলেও তিনি এতাে খুশি হতেন না।। রাসূল (সাঃ)  তাকিয়ে দেখলেন, বৃদ্ধ আবু কোহাফা -এর চুল দাড়ি শুভ্র হয়ে গেছে।

তাই তিনি আবু বকরকে বললেন, এ শুভ্রতাকে খোব দিয়ে রাঙিয়ে দাও। তবে তা যেন কালাে না হয়ে যায়।‘ (মুসনাদে আহমদ:২৫৭১৮) এভাবেই রাসূল (সাঃ) মানুষের সঙ্গে আচরণ ও কথায় তাদের মানসিক অবস্থার প্রতি লক্ষ্য রাখতেন। মক্কায় প্রবেশের সময় তিনি সৈন্যবাহিনীকে কয়েকটি দলে ভাগ করেন। একটি দলের পতাকা দেন বিখ্যাত সাহাবী সাদ বিন উবাদা (রাঃ)-এর হাতে। যুদ্ধক্ষেত্রে পতাকা বহন ছিল মর্যাদা ও সম্মানের বিষয়। এ সম্মান শুধু ব্যক্তির নয়; বরং পতাকাবাহীর পুরাে গােত্রের সম্মান। সাদ (রাঃ) মক্কার দিকে তাকালেন। তাকালেন মক্কার অধিবাসীদের দিকে। তিনি ভাবলেন, এরাই তাে এতােদিন আল্লাহর রাসূলের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেছে, নানাভাবে তাকে ও তার সহচরদেরেকে কষ্ট দিয়েছে।

শান্তিপ্রিয় মানুষকে রাসূলের সংস্পর্শে আসতে বাধা দিয়েছে। এরাই সুমাইয়া দিলে ও ইয়াসির নিয়াহু-কে নির্মমভাবে হত্যা করেছে, বেলাল ও খাব্বাবের ওপর বর্বর নির্যাতন চালিয়েছে। আজ উপযুক্ত শাস্তি এদের পেতেই হবে। সাদ (রাঃ)  পতাকা নাড়িয়ে বজ্রকণ্ঠে বললেন, ‘আজ লড়াইয়ের দিন, আজ হেরেমের সীমানায় রক্তপাতের দিন। সাদ (রাঃ) -এর এ হুমকি শুনে কোরাইশরা ভীত-সন্ত্রস্ত হয়ে পড়ল। তারা ভাবল, আজ কারাে নিস্তার নেই। মুসলমানরা সবাইকে নিশ্চিহ্ন করে ফেলবে। জনৈক মহিলা দ্রুত রাসূলের সঙ্গে দেখা করে সাদ (রাঃ) -এর হুমকিতে কোরাইশদের ভীত হয়ে পড়ার বিষয়টি জানাল। সে স্বরচিত কবিতার ছন্দে বিষয়টিকে এভাবে ব্যক্ত করলােহে হেদায়েতের নবী ! এখন আপনি ছাড়া কোরাইশদের আর কোনাে আশ্রয় নেই। বিশাল পৃথিবী এখন তাদের জন্য সংকীর্ণ হয়ে এসেছে। তাদের কল্পিত প্রভু যখন তাদের সঙ্গে বৈরিতা প্রদর্শন করেছে

তখন আপনিই তাদের একমাত্র আশা-ভরসার পাত্র। সা’দ তাে হুজুন ও বাতহা এলাকার লােকদের হাড় ধুলায় মিশিয়ে দিতে চায়, এই খাজরাজী সরদার যদি সুযােগ পায় তাহলে, সে আমাদের ওপর তীর-বর্শা নিক্ষেপ করতে কোনাে দ্বিধা করবে না। এই কালাে সিংহ ও রক্তপিপাসু বাঘ থেকে আমাদেরকে রক্ষা করুন। সে যদি পতাকা হাতে অধীনস্থদের নির্দেশ দেয় তাহলে কোরাইশ জনপদ

ধুলায় মিশে যাবে। সে বধির সাপের ন্যায়, নাঙ্গা তরবারি নিয়ে কোরাইশকে নিঃশেষ করে দিতে বদ্ধপরিকর।মহিলার কবিতা শুনে রাসূলের হৃদয়ে দয়া ও সহানুভূতির ঢেউ খেলে গেল। মহিলাটি যেহেতু অনেক বড় আশা নিয়ে রাসূলকে বিষয়টি জানিয়েছিল, তাই রাসূল (সাঃ) তাকে নিরাশ করতে চাইলেন না। আবার সাদের হাতে নেতৃত্বের পতাকা দেয়ার পর তা ফিরিয়ে নিলে তার মনে আঘাত লাগবে এ বিষয়টিও তিনি ভাবলেন। তাই তিনি এমন কৌশল অবলম্বন করলেন যেন সাপও মরে লাঠিও না ভাঙ্গে। রাসূল (সাঃ) সাদ (রাঃ) -এর হাতের পতাকা তার পুত্র কায়েস বিন সাদ (রাঃ)-কে বহন করতে বললেন।

কায়েস পতাকা নিয়ে মক্কায় প্রবেশ করলেন এবং তার পিতা সাদ তার পাশে হেঁটে হেঁটে অগ্রসর হতে লাগলেন। সাদের হাতে পতাকা না দেখে ওই মহিলা ও কোরাইশরা খুশি হলাে। এদিকে সাদও মনক্ষুন্ন হলেন না। কারণ, তিনি তাে তখনাে তার বাহিনীর সেনাপতি হিসেবে বহাল আছেন। উপরন্তু পতাকাবাহনের কষ্টও তাকে করতে হচ্ছে না। পতাকা তার পক্ষে তার ছেলে বহন করে চলছে। এক ঢিলে কয়েক পাখি শিকারের এর চেয়ে সুন্দর

দৃষ্টান্ত আর কী হতে পারে? তাই আপনিও এমন আচরণ কৌশল রপ্ত করুন যেন কাউকে হারাতে না হয়। আপনার লক্ষ্য অর্জন করুন, আবার সবার মন জয় করে নিন। তাদের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য ভিন্ন ভিন্ন হতে পারে তাতে সমস্যা কী? সবাইকে আপন করে নিন।

সিদ্ধান্ত… আমাদের আচরণ যেন হয় হৃদয়ের সাথে হৃদয়ের, বাহ্যিক অঙ্গ প্রত্যঙ্গের নয়।

উৎসঃ Enjoy Your Life (Bangla Version) , অধ্যায়ঃ ২৩, পৃষ্ঠা: ১৫১ -১৫৭

Print Friendly, PDF & Email


'আপনিও হোন ইসলামের প্রচারক'
প্রবন্ধের লেখা অপরিবর্তন রেখে এবং উৎস উল্লেখ্য করে
আপনি Facebook, Twitter, ব্লগ, আপনার বন্ধুদের Email Address সহ অন্য Social Networking ওয়েবসাইটে শেয়ার করতে পারেন, মানবতার মুক্তির লক্ষ্যে ইসলামের আলো ছড়িয়ে দিন। "কেউ হেদায়েতের দিকে আহবান করলে যতজন তার অনুসরণ করবে প্রত্যেকের সমান সওয়াবের অধিকারী সে হবে, তবে যারা অনুসরণ করেছে তাদের সওয়াবে কোন কমতি হবেনা" [সহীহ্ মুসলিম: ২৬৭৪]

দ্বীনী খিদমায় অংশ নিন

আপনার মন্তব্য লিখুন