আপনার জীবন থেকে ক্লান্তি ও বিরক্তি দূর করুন

0
32

লেখকঃ ড. আয়িদ আল করনী | অনুবাদঃ ডা. হাফেজ মাওলানা মােহাম্মদ নূর হােছাইন

একই কাজ বারবার করতে হয় এমন নিয়ম মাফিক বা রুটিন অনুসারে যারা জীবনযাপন করেন, তারা প্রায় অলঙ্নীয়ভাবে বিরক্তি ও ক্লান্তির শিকার হয়ে পড়বেন। বিশেষ করে এ কারণে যে, পরিবর্তনের অভাবে স্বভাবতই ক্লান্ত হয়ে পড়ে। এ কারণেই সর্বশক্তিমান মহান আল্লাহ আমাদেরকে বিভিন্ন স্থান-কাল, খাদ্য-পানীয়, সৃষ্টি-বৈচিত্র, যেমন- দিন-রাত, পাহাড়-সমভূমি, সাদা-কালাে, ঠাণ্ডা-গরম, আলাে-ছায়া ও টক-মিষ্টি দান করেছেন। আল্লাহ্ তাঁর কিতাবে এই বৈচিত্র্যের কথা উল্লেখ করেন:-

তাদের (মৌমাছিদের) পেট থেকে বিভিন্ন রঙের (মধুর) পানীয় বেরােয়।” [১৬-সূরা আন নাহল : আয়াত-৬৯]

তারা একই মূলে একাধিক বা এক মাথাওয়ালা খেজুর গাছ।” [১৩-সূরা রা’আদ : আয়াত-৪]

আর বিভিন্ন স্বাদের শস্য, যয়তুন ও ডালিম (বর্ণে, আকারে ও স্বাদে) সদৃশ ও বিসদৃশ।” [৬-সূরা আল আনআম : আয়াত-১৪১]

আর পাহাড়ের মাঝে আছে সাদা-লাল বিচিত্র বর্ণের পথ।” [৩৫-সূরা ফাতির : আয়াত-২৭]

 “আর আমি মানুষের মাঝে এদিনগুলােকে পর্যায়ক্রমে আবর্তন করি। [৩-সূরা আলে ইমরান : আয়াত-১৪০]

নী ইসরাঈলদেরকে যে খাদ্য দেয়া হয়েছিল তা সর্বোত্তম খাদ্য হওয়া সত্ত্বেও শুধু একমাত্র খাদ্য হওয়ার কারণেই তাদের তা খেতে ভালাে লাগছিল না। (এবং তারা বলেছিল): “আমরা একই রকম খাদ্য সহ্য করতে পারব না।” [২-সূরা বাক্বারা : আয়াত-৬১]

আল-মামুন একবার দাঁড়িয়ে, একবার বসে ও একবার হাঁটতে হাঁটতে (আরবী ২২তম সংস্করণের মূল পুস্তক থেকে এ অংশটুকুর অনুবাদ করা হল। -অনুবাদক) এভাবে পালাবদল করে করে পাঠ করতেন এবং বলতেন : ‘আত্মা সদাই ক্লান্তিকর।’ “যারা (সর্বদা এবং সালাতে) দাঁড়িয়ে, বসে ও শুয়ে শুয়ে আল্লাহর জিকির করে…।” [৩-সূরা আলে ইমরান : আয়াত-১৯১]

ইসলামে যে সব ইবাদতের বিধান জারি বা প্রণয়ন করা হয়েছে তা নিয়ে আপনার গভীরভাবে ভেবে দেখা উচিত। কলবের আমল, জিহ্বার আমল, ঠোটের আমল ও সৎ কাজে সম্পদ ব্যয় করার আমল সম্পদের আমল। সালাত, রােজা, হজ্জ, যাকাত ও জিহাদ ফী সাবীলিল্লাহ বা আল্লাহর রাস্তায় জিহাদ হলাে ইবাদতের কয়েকটি উদাহরণ। সালাতে দাঁড়ানাে, রুকু, সিজদা ও বসা (ইত্যাদি অবস্থা) আছে। আপনি যদি বিশ্রাম, সজীবতা ও বিরামহীন উপাদানের আশা করেন তবে আপনার কাজের ধরন, পড়ার ধরন ও জীবন-যাপন প্রণালীতে পরিবর্তন আনুন।

উদাহরণস্বরূপ পড়ার ব্যাপারে বলছি- যখন পড়বেন তখন বিষয় পরিবর্তন করে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে পড়াশুনা করুন-যেমন একবার নবী (আ) এদের জীবনী, একবার সাহাবীদের জীবনী, একবার হাদীস, একবার ফিকহ, আরেকবার ইতিহাস, ক্ষণিক পরে সাহিত্য, তারপরে সাধারণ জ্ঞানের বই ও এভাবে পালাক্রমে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে পড়ুন। এর সর্বোত্তম উদাহরণ ও ব্যাখ্যা হলাে কুরআন মাজিদ। (কারণ, কুরআনে এভাবে এসব বিষয় বর্ণনা করা দু হয়েছে-বঙ্গানুবাদক)

আপনার সময়কে ইবাদত, বৈধ আমােদ-আহ্লাদ, দু বন্ধুদের দেখতে যাওয়া, অতিথি আপ্যায়ন, খেলা-ধুলা বা প্রমােদ ভ্রমণের : মাঝে ভাগ করে নিন; তবেই আপনি নিজেকে প্রাণবন্ত, সজীব ও উজ্জ্বল টু ব্যক্তিরূপে পাবেন; কেননা, আত্মা বিভিন্নতা ও নতুন নতুন জিনিসে আনন্দ পায়।

উৎসঃ লা তাহযান [হতাশ হবেন না], ক্রমিক নংঃ ৪৫, পৃষ্ঠা: ১১২ – ১১৩

Print Friendly, PDF & Email


'আপনিও হোন ইসলামের প্রচারক'
প্রবন্ধের লেখা অপরিবর্তন রেখে এবং উৎস উল্লেখ্য করে
আপনি Facebook, Twitter, ব্লগ, আপনার বন্ধুদের Email Address সহ অন্য Social Networking ওয়েবসাইটে শেয়ার করতে পারেন, মানবতার মুক্তির লক্ষ্যে ইসলামের আলো ছড়িয়ে দিন। "কেউ হেদায়েতের দিকে আহবান করলে যতজন তার অনুসরণ করবে প্রত্যেকের সমান সওয়াবের অধিকারী সে হবে, তবে যারা অনুসরণ করেছে তাদের সওয়াবে কোন কমতি হবেনা" [সহীহ্ মুসলিম: ২৬৭৪]

আপনার মন্তব্য লিখুন